এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের প্রথম বার্ষিকী

এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের প্রথম বার্ষিকী

বনানীর এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের প্রথম বার্ষিকী আজ। অগ্নিকাণ্ডে নিহত হন ২৭জন। ঘটনার পর পরই গঠিত হয় তদন্ত কমিটি, সব মহল থেকে আশ্বাস দেয়া হয় বিচারের। কিন্তু বিচার তো শুরুই হয়নি, এমনকি নিহতদের ময়না তদন্তও শেষ হয়নি।

স্বজনহারা পরিবারগুলো বিচারের আশায় আদালতের দিকে তাকিয়ে আছে। তাদের আশা দ্রুতই মামলার বিচার শেষ হবে।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্ত এক বছরেও শেষ হয়নি।

মামলাটিতে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য এখন পর্যন্ত ১১ দফা সময় নিয়েছে তদন্ত সংস্থা ডিবি। সর্বশেষ গত ১২ মার্চ মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ধার্য ছিল। কিন্তু ওই দিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক ফজলুল হক প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেননি। এজন্য ঢাকা মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবদাস চন্দ্র অধিকারী আগামী ১৬ এপ্রিল প্রতিবেদন দাখিলের পরবর্তী তারিখ ধার্য করেন।

এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডে নিহত সবার আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।

অগ্নিকাণ্ডে নিহত ২৫ জনের পরিচয়


১। ফায়ারম্যান সোহেল রানা (২২)
[আগুন নেভানো ও আটকে পড়া ব্যক্তিদের উদ্ধারে নিজের জীবনকে তুচ্ছ করে ১২দিন চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় মারা যান।]

২। তানজিলা মৌলি মিথি (২৫)
এশিয়ান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের বিবিএ ৫১তম ব্যাচের ছাত্রী,
হেরিটেজ ট্যুরিজমের কর্মকর্তা,
স্বামী রায়হানুল ইসলাম,
জেলা বগুড়া।

৩। শেখ জারিন তাসনিম বৃষ্টি (২৫)
বাবা শেখ মোজাহিদুল ইসলাম,
মা নীনা ইসলাম,
জেলা যশোর।

৪। মোহাম্মদ সালাউদ্দিন মিঠু (২৫)
বাবা সামসুদ্দিন,
মা মাকসুদা,
জেলা ঢাকা।

৫। আনজির সিদ্দিক আবির (২৭)
বাবা আবু বক্কর সিদ্দিক,
জেলা লালমনিরহাট।

৬। আমির হোসেন রাব্বি (২৯)
বাবা মোহাম্মদ আইয়ুব আলী,
মা রত্না খাতুন,
জেলা পাবনা।

৭। রুমকি আক্তার (৩০)
স্বামী মাকসুদুর রহমান,
জেলা নীলফামারী।

৮। মোহাম্মদ ফজলে রাব্বি (৩০)
বাবা মোহাম্মদ জুহিরুল হক,
মা শাহানাজ বেগম,
জেলা নারায়ণগঞ্জ।

৯। জেবুন্নেসা (৩০)
বাবা আব্দুল ওয়াহাব,
মা মৃত কামরুন্নাহার,
জেলা নোয়াখালী।

১০। মোহাম্মদ মাকসুদুর রহমান (৩২)
বাবা মৃত মিজানুর রহমান

১১। নাহিদুল ইসলাম তুষার (৩৫)
বাবা মোহাম্মদ ইসহাক আলী,
জেলা টাঙ্গাইল।

১২। নিরোস (৩৫)
বাবা বিগনারাজ, শ্রীলঙ্কা।

১৩। মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান (৩৬)
বাবা মৃত আব্দুর রশিদ,
জেলা রংপুর।

১৪। মোহাম্মদ ইফতিয়ার হোসেন মিঠু (৩৭)
বাবা মোহাম্মদ ইছহাক আলী,
জেলা কুষ্টিয়া।

১৫। মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন (৪০)
বাবা মৃত আলহাজ আবুল,
জেলা দিনাজপুর।

১৬। আতিকুর রহমান (৪২)
বাবা আব্দুল কাদের মির্জা,
মা হাজেরা বেগম,
জেলা শরীয়তপুর।

১৭। ফ্লোরিডা খানম পলি (৪৫)
স্বামী ইউসুফ ওসমান,
জেলা ঢাকা।

১৮। মোহাম্মদ পারভেজ সাজ্জাদ (৪৬)
বাবা মৃত নজরুল ইসলাম মৃধা,
মা নাসিমা বেগম,
জেলা গোপালগঞ্জ।

১৯। সৈয়দা আমিনা ইয়াসমিন (৪৮)
বাবা সৈয়দ মহিউদ্দিন আহমেদ।
জেলা মৌলভীবাজার।

২০। মোহাম্মদ মঞ্জুর হাসান (৪৯)
বাবা মৃত মনসুর রহমান,
জেলা নওঁগা

২১। মোহাম্মদ মনির হোসেন সরদার (৫২)
বাবা মৃত মোতাহর হোসেন সরদার,
জেলা বরিশাল।

২২। আহম্মদ জাফর (৫৯)
বাবা মৃত হাজী হেলাল উদ্দিন,
মা আলভি বেগম,
জেলা নারায়ণগঞ্জ।

২৩। আতাউর রহমান (৬২)
বাবা হাবিবুর রহমান,
জেলা ঢাকা।

২৪। আব্দুল্লাহ আল ফারুক (৩২)
বাবা মৃত মকবুল আহম্মেদ, জেলা ঢাকা।

২৫। মোহাম্মদ মিজানুর রহমান
জেলা, খুলনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *