চলে গেলেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী আকবর 

:: নাগরিক প্রতিবেদন ::

দীর্ঘদিন রোগে ভুগে অবশেষে মারা গেলেন ইত্যাদি খ্যাতি কণ্ঠশিল্পী আকবর। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৪ বছর।

রোববার (১৩ নভেম্বর) দুপুর সোয়া ৩টার দিকে আকবরের কন্যা অথৈ ফেসবুকে অথৈ লিখেছেন, ‘আব্বু আর নেই’।

চিকিৎসারত অবস্থায় রাজধানীর বারডেম হাসপাতালের মারা যান তিনি। ইত্যাদি খ্যাত যশোরের রিকশাচালক আকবর জনপ্রিয়তা পান কিশোর কুমারের গান গেয়ে।

অনেক দিন ধরেই নানা ধরনের শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন আকবর, চলছিল চিকিৎসাও। তিনি ডায়াবেটিসে ভুগছিলেন। দুই বছর ধরে শরীরে বাসা বেঁধেছিল জন্ডিস। এ ছাড়া কিডনিতে সমস্যা, রক্তের প্রদাহসহ ছিল নানা শারীরিক জটিলতা। গত জানুয়ারি থেকে তিনি ছিলেন বিছানায়। আকবরের দুটি কিডনি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় শরীরে পানি জমে তাঁর ডান পা নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। গত অক্টোবরে সেই পা কেটে ফেলা হয়েছিল। পা কাটার পর বেড়ে যায় তাঁর কিডনি ও লিভারের সমস্যা।

অক্টোবরে ঢাকার বেটার লাইফ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন আকবর।  সেখান থেকে ১৯ অক্টোবর তাকে বাসায় নেয়া হয়। কিন্তু অবস্থার অবনতি হলে গত ৫ নভেম্বর বারডেমে ভর্তি করা হয়।

প্রায় দুই সপ্তাহ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন আকবর। রাজধানীর বারডেম হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ছিলেন তিনি। কিন্তু অবস্থার অবনতি হওয়ায় ৯ নভেম্বর সকালে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়।

দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ আকবর আলী গাজী ডায়াবেটিস ও কিডনির জটিলতা জটিলতা নিয়ে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার চিকিৎসার জন্য ২০ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছেন।

রিক্সা চালক থেকে ‘ইত্যাদি’র মাধ্যমে দেশ বিদেশে গায়ক হিসেবে পরিচিতি পান আকবর। মূলত তিনি জনপ্রিয়তা পান কিশোর কুমারের গান গেয়ে। ইত্যাদিতে তার গাওয়া গান ‘একদিন পাখি উড়ে যাবে যে আকাশে, ফিরবে না সেতো আর কারও আকাশে’- কিশোর কুমারের গানটি গেয়ে জনপ্রিয়তা পান তিনি।

এর আগে, শনিবার (৫ নভেম্বর) দুপুরে গায়ক আকবরের শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনকভাবে অবনতি হলে তাকে রাজধানীর বারডেম হাসপাতালের আইসিইউতে নেয়া হয়।

প্রসঙ্গত, কিশোর কুমারের ‘একদিন পাখি উড়ে’ নতুন করে গেয়েছেন আকবর। সবার কাছে তিনি আকবর নামে পরিচিতও তার পুরো নাম আকবর আলী গাজী। হানিফ সংকেতের ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’তে এই গান গেয়েই আলোচনায় আসেন তিনি।

২০০৩ সালে যশোর এম এম কলেজের একটি অনুষ্ঠানে গান গেয়েছিলেন আকবর। বাগেরহাটের এক ব্যক্তি আকবরের গান শুনে মুগ্ধ হন। তিনি ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’তে চিঠি লেখেন আকবরকে নিয়ে। এরপর ‘ইত্যাদি’ কর্তৃপক্ষ আকবরের সঙ্গে যোগাযোগ করে। ওই বছর ‘ইত্যাদি’ অনুষ্ঠানে কিশোর কুমারের ‘একদিন পাখি উড়ে’ গানটি গেয়ে রাতারাতি পরিচিতি পেয়ে যান আকবর।

আকবরকে নিয়ে পূর্ণিমার স্মৃতিচারণ

ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ইত্যাদির মঞ্চে ‘একদিন পাখি উড়ে যাবে’ শিরোনামের গান গেয়ে পরিচিতি পেলেও তার প্রথম মৌলিক গান ‘তোমার হাত পাখার বাতাসে’। এ গান তাকে তুমুল জনপ্রিয়তা এনে দেয়। গানটির ভিডিওতে আকবরের স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেন ওই সময়ের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা। আকবরের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন এই অভিনেত্রী।

শুটিংয়ের স্মৃতিচারণ করে পূর্ণিমা বলেন— ‘কাজটি করার সময় তিনি (আকবর) বেশ নার্ভাস ছিলেন। তার জীবনে এটি বিশাল একটি কাজ। আমার সঙ্গে বসে আছেন তিনি। আমি হাত পাখার বাতাস করছি তাকে, খাওয়াচ্ছি। হাত ধরারও কিছু দৃশ্য ছিলো। এত বেশি নার্ভাস ছিলেন যে, পাশে বসবেন কী বসবেন না তা নিয়েও সংশয়ে ছিলেন। কিন্তু আমি আর সংকেতদা তাকে যেভাবে বুঝিয়েছি সেভাবেই শেষ পর্যন্ত কাজটি করেছেন। বোঝাই যায়নি এই ধরনের কাজ এটাই তার প্রথম।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *