বাংলাদেশের এক অনবদ্য প্রতিচ্ছবি জিয়াউর রহমান

:: হাসান আল আরিফ ::

চিন্তার জগৎটা একটু খুলবেন কী ? ১৯৭১ সালের ৩১ মার্চে বাংলাদেশের প্রথম কোন ব্যক্তি UN’কে স্বাধীনতার জন্যে যুদ্ধরত বাংলাদেশের অবস্থা জানিয়ে চিঠি লিখছে…অথচ এই কাজটা করার কথা ছিলো রাজনৈতিক নেতৃত্বের কিন্তু তা হয়েছে কী ? কিন্তু দেখেন, এখনকার বাংলাদেশে সেই নির্লজ্জ রাজনীতিবিদেরাই কি পরিমান আস্ফালন করছে…।

From

Major Zia

Declaration :

Punjabis have used 3rd Commando Battalion in Chittagong city area to subdue the valiant freedom fighters of Sadhin Bangla. But they have been thrown back and many of them have killed. The Punjabis have been extensively using F-86 air crafts to kill the civilian strongholds and vital points. They are killing civilians, men, women and children brutally. So far at least thousands of Bengali civilians have been killed in Chittagong area alone.

The Sadhin bangle Liberation Army is pushing the Punjabis from one place to other.

At preset Punjabis have utilized at least two Brigade of Army, Navy and Air Force. It is in fact a combined operation. I once again request the United Nations and the big powers to intervene and physically come to our aid. Delay will mean massacre of additional millions.

Signature

Major Ziaur Rahman

31.3.71

সূত্রঃ বাংলাদশের স্বাধীনতা যুদ্ধের দলিলপত্রঃ তৃতীয় খণ্ড, পৃষ্ঠা ৩।

বাংলাদেশের ক্ষণজন্মা প্রবাদপুরুষ, জিয়াউর রহমানকে নিয়ে দেশে ও দেশের বাইরের বাংলা ভাষাভাষী নাগরিক স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছিলো বলেই কায়েমী স্বার্থবাদীরা জিয়ার বিরোধীতা করতে শুরু করে। এখনো সেই রক্তেরই ধারাবাহিকতায় তাদের ছাও-পোনাগুলো একই দৃষ্টিতে জিয়ার বিরোধীতা করে থাকেন- কেননা, বাংলাদেশ মেরুদন্ড সোজা করে দাড়াক; আমাদের জাতীয় ইতিহাস সমৃদ্ধ হোক, শক্ত ভিত্তির উপর দাড়াক; তারা কিন্তু তা চায় না। জিয়াউর রহমান ছিলেন এই বাংলার স্বপ্ন পুরুষ; এটিই ইতিহাসের সত্য।

২.

স্বাধীনতার জন্যে যুদ্ধরত বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রথম সেনানিবাস (রৌমারী) উদ্বোধন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান, সময়টা ১৯৭১ সালের ১৩ ই আগস্ট এবং ১৯৭১ সালের ২১ ই আগস্ট বাংলাদেশ অভ্যন্তরে প্রথম বেসামরিক (সিভিল প্রশাসন) উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের নয়নের মনি জেড ফোর্স কমান্ডার জিয়াউর রহমান। বাংলাদেশের মাটিতে সামরিক ও বেসামরিক প্রশাসন জিয়াউর রহমানের হাতেই উদ্বোধন হওয়া। এটিই ইতিহাসের সত্য; কারো আস্ফালনে ইতিহাস চেঞ্জ হয়ে যাবে না। সত্য উন্মোচিত হউক।

(তথ্যসূত্র: অজয় রায়, বাংলার মুখ আমি দেখিয়াছি: মুক্তিযুদ্ধে রৌমারী, মুক্তমনা ব্লগ, ১৭ ই ডিসেম্বর ২০০৯)

১৯৫৪ সালে সেনাবাহিনীর কমিশন লাভের পর জিয়াউর রহমান কুমিল্লা সেনানিবাসের অধীনে শীতকালীন মহড়ার অংশ হিসাবে নির্দেশনা অনুযায়ী এক কৃষকের গোয়ালঘরে লুকিয়ে ছিলেন। রাতশেষে সকালবেলা পিপাসা পেলে তিনি ঐ বাড়ির কৃষকের কাছে পানি চাইলেন। কৃষক দৌড়ে গিয়ে এক গ্লাস পানি নিয়ে আসলেন। পানির গ্লাসটি জিয়ার দিকে এগিয়ে এগিয়ে দিতে দিতে কৃষকটি উর্দুতে বললেন, ‘লিজিয়ে হুজুর, পানি লিজিয়ে।’ খুব দু:খ পেলেন জিয়াউর রহমান। তিনি পানি চাইলেন বাংলায়; কৃষকের সাথে আরো কথাও বললেন বাংলায়; চাষীও জানেন তিনি বাঙ্গালী কিন্তু পানি এনে কথা বললেন উর্দুতে ! হয়তো চাষীর ধারণা ছিলো, সেনাবাহিনীর লোক হলেই তারা উর্দুতে কথা বলে এবং তাদের সাথেও উর্দুতেই কথা বলতে হয়। জিয়া পানি খেলেন না। রাগে চাষীর গালে চড় কষিয়ে দিয়ে বললেন, ‘আমি আপনার কাছে পানি চাইলাম বাংলায়, কথাও বললাম বাংলায় আর আপনি আমার সাথে উর্দুতে কথা বললেন কেনো ? এত পা চাটা স্বভাব কেনো আপনাদের ?’ চাষী তখন ভড়কে যান। জিয়া নিজেও লজ্জা পেয়ে যান উনার সাময়িক আচরণের জন্য। হাত ধরে চাষীর কাছে ক্ষমা চেয়ে বললেন, “আপনার থেকে উর্দু শুনে রেগে গিয়েছিলাম। আপনাকে মুখে বললেই হতো, চড় মারা উচিত হয়নি। আপনি আমাকে ক্ষমা করে দিবেন।”

(তথ্যসূত্র: হেদায়েত হোসাইন মোরশেদ, একজন জিয়া, আফসার প্রকাশনী, ঢাকা, ২০০৬; পৃষ্ঠা- ৯৫)

অনেক রাম ছাগলকে শুনবেন, টকশো এবং বক্তব্যে বলে, বলবে- বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের নয়নের মনি, জিয়াউর রহমান নাকি বাংলা জানতেনই না !! জাতির ঐ সকল কু-সন্তানগুলোর জন্যে শুধুই করুণা…। সত্য উন্মোচিত হউক।

৩।

“নেতৃত্বের যে স্টাইল জিয়া আত্মস্থ করেছিলেন, অন্যদের চেয়ে তা ছিল আলাদা। তাঁর ভাষা ছিল বাংলাদেশের অপরাপর নেতাদের চেয়ে সম্পর্ণ ভিন্ন। সরকার তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন করে দেবে এই কথা বলার পরিবর্তে, কৃষক সম্প্রদায় তথা সাধারণ মানুষ যাতে নিজেদের চেষ্টাতেই নিজেদের অবস্থার উন্নয়ন ঘটাতে পারে, সেজন্যে জিয়া তাদের অনুপ্রাণিত করার চেষ্টা করতেন। বাংলাদেশের কোন কোন রাজনৈতিক নেতা দেশকে মনে করতেন বা করেন, ‘আমার দেশ’ এবং জনগণকে ‘আমার জনগণ’। তাঁদের মত না বলে জিয়া সব সময়ই বলতেন, ‘আমাদের দেশ’ ও ‘আমাদের জনগণ’।”

(তথ্যসূত্র: মাহফুজ উল্লাহ, প্রেসিডেন্ট জিয়া, অ্যার্ডন পাবলিকেশন, ঢাকা, ২০১৬; পৃষ্ঠা-৪৬)

অথচ দেখবেন, বর্তমানের গোল্ডফিস মেমোরীযুক্ত নাগরিককে আবালীয় সব স্বপ্নজালে আচ্ছন্ন করে রাখা পানির মত সোজা কাজ। ২০১০ সাল থেকেই পদ্মা সেতুতে গাড়ি চলছে !! এখন নাকি আবার বুলেট ট্রেনে চট্রগ্রাম যাবো মাত্র ৫৫ মিনিটে !! আর কক্সবাজারে হানিমুন ট্রিপের রেললাইন তো আছেই !! আর প্রতিনিয়তই তো আমরা খোটা শুনি, গ্রামের নিন্মশ্রেনির মহিলাদের ঝগড়ার সুরে- আমি খাওয়াই, আমি পড়াই, বিশ্ববিদ্যালয়ে কম টাকায় পড়াই !! তবুও এই নির্লজ্জ সন্তানদের কোন শিক্ষাই হবে না- আর যিনি এমন বলেন (!) উনার নাম মুখে আনাও যে পাপ !! উনি জুতাপেটা করলেও নাকি উনাদের শান্তি লাগে।

আমি জানি, একদিন আমারও প্রয়োজন ফুরিয়ে যাবে। তার আগেই আমি আমার উপলব্ধিকে আমি গ্রামের মানুষের, সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন অভিজ্ঞতার সমস্যার সঙ্গে মিলিয়ে নিতে চাই। আপনি জিজ্ঞেস করলেন, নিয়মতান্ত্রিক জীবন থেকে বেরিয়ে এসে কেমন লাগছে ? আমার কথা হল আপনিও আসুন। দেখবেন, সাংবাদিক হিসাবে আপনি পেক্ষিত পাবেন, লেখার মত বিষয় পাবেন। আমি কিন্তু বেরিয়ে এসেছি আড়াই বছর আগে। আজ বা একদিনেই নয়। সমস্যা সমাধান করার, সমস্যাকে সঠিকভাবে অনুধাবন করার আমার নিজস্ব পদ্ধতি হল সমস্যার মধ্যে চলে যাওয়া। আমি সত্যিই বিশ্বাস করি- গণতন্ত্রের চিৎকার নয়, গণতন্ত্রকে জনগণের চেতনায় বসিয়ে দিতে হবে। পেশাদার রাজনীতিবিদদের হাত থেকে বের করে এই চেতনার শিকড় জনগণের ভেতর রোপন করতে হবে। যাকে আমি বলছি জনগণের গণতন্ত্র।

(তথ্যসূত্র: সাপ্তাহিক বিচিত্রা, বর্ষ ৭, সংখ্যা ৪, ৯ জুন ১৯৭৮)

হ্যালো, জাতির সেই সকল সন্তানেরা, যারা জিয়ার গণতন্ত্র নিয়ে এলার্জিসহ বসবাস করেন ! আর এখনকার চোট্টামিতন্ত্রকে নিয়ে বুক ফুলান !! হাসিনার এই গণতন্ত্রকে যারা সমর্থন করে বক্তব্যে দেন- তারা আর যাই হোক, সুস্থ কেউ না। নির্লজ্জতারও তো একটা লিমিট থাকা চাই। সব হার মেনে যাচ্ছে…।

৪.

“একজন সাহসী মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে আপনি যে প্রথম বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছেন সেজন্যে আপনার দেশের ইতিহাসের পাতায় আপনার অবস্থান এরই মধ্যে নিশ্চিত হয়ে গেছে। দেশের শাসনভার হাতে নেওয়ার পর আপনি এমন একজন নেতা হিসাবে বাংলাদেশে ও বিদেশে ব্যাপক সম্মান পেয়েছেন, যিনি তাঁর দেশের অগ্রগতি ও জনগণের কল্যাণের জন্যে সত্যি সত্যিই নিজেকে উৎসর্গ করেছেন।”

(তথ্যসূত্র: দি বাংলাদেশ অবজারভার, ২০ ডিসেম্বর ১৯৭৭; বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান সমন্ধে ভারতের রাষ্ট্রপতি নীলম সঞ্জীব রেড্ডির মূল্যায়ন।)

আফসোস, সেই সকল অভাগা বাংলাদেশী কু-সন্তানদের জন্যে, যারা বাংলাদেশের এই অকুতোভয় বীরকে নানাভাবে মিসকোড করেন। চরিত্রের কালিমা লেপন করতে চান !! মাঝে মাঝে মনে হয়, দাসত্বপ্রিয় এই জাতির জন্যে কর্মঠ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মত মানুষদের অক্লান্ত পরিশ্রম মনে হয় না করলেই ভাল হইতো !! জন্মগতই দাস জাতির ঐ সকল কু সন্তানগুলো তো দাসত্বকেই মাথার তাজ মানেন- তারা কি করে বুঝবে মুক্তির প্রেরণা, মুক্তির স্বাদ কিংবা একজন প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের অবদান ? তাদের বিবেক জাগ্রত হউক।

৫.

“একজন প্রেসিডেন্ট মাত্র সাড়ে চারশ টাকার ঘড়ি পরে মারা গেলেন। অথচ বঙ্গভবনে সে সময় ১৪-১৫ টি দামি ঘড়ি ছিল যেগুলোর এক একটির মূল্য ছিলো প্রায় তিন লাখ টাকা। কে এম কায়সার তখন বাংলাদেশের জাতিসংঘ প্রতিনিধি। তিনি প্রেসিডেন্ট জিয়াকে একটি দামি ঘড়ি উপহার দিয়েছিলেন। আরেকবার ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্টের কাছে মরহুম কর্নেল আকবরকে তেলের জন্যে পাঠিয়ে ছিলেন। দেখলাম যে, সেখান থেকে একটি ঘড়ি দিয়ে দিলেন ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট সুহার্তোকে উপহার দেওয়ার জন্য। এ ঘড়িগুলো বিদেশীরা উপঢৌকন হিসাবে দিতেন। কিন্তু তিনি কোনদিনি নিজের জন্যে এগুলো ব্যবহার করেন নাই। বঙ্গভবনে সাজিয়ে রাখতেন। এগুলো আমাদের চোখের সামনে দেখা আদর্শ।”

(তথ্যসূত্র: একেএম মাইদুল ইসলাম মুকুল, আত্মসত্তার রাজনীতি এবং আমার ভাবনা, হাতেখড়ি, ঢাকা, ২০১৫; পৃষ্ঠা-১৮০)

বর্তমান বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় তোষখানা বলতে কিছু আছে কি ? একেক মন্ত্রীর হাতে কোটি টাকার ঘড়ির ছবিও তুলে সাংবাদিকেরা !! আর এই রাষ্ট্রের গণভবনে একদিনের রাষ্ট্রীয় আপ্যায়ন বিল কত জানেন কি ?? এই খবর রাখার প্রয়োজন goldfish memory যুক্ত নাগরিক না রাখারই কথা- কেননা এই সব অপব্যয় সামনে আসলেই তো আর জিয়াউর রহমান কে দুটো কু-কথা বলা যাচ্ছে না। আপনাদের কি বিবেক নাই ? কবে সত্যের পক্ষে বিবেকবান হবেন ?

৬.

“এটি স্বাধীনতার প্রথম কয়েক মাসের মধ্যে অর্থ্যাৎ বাহাত্তর সালের শুরুর দিকের ঘটনা। আকবর ভাইয়ের (মুক্তিযুদ্ধ থেকে ফিরে আসা মণির ভাই মেজর আকবর হোসেন) কাছ থেকে চিঠি পেলাম আমাকে দু’শ পাউন্ড ধার দিতে হবে কানাডাগামী কর্নেল জিয়াউর রহমানকে। পাছে আমি না চিনতে পারি সেজন্যে তিনি পরিচয় দিয়ে বললেন- ‘এই সেই মেজর জিয়া যিনি কালুরঘাট বেতারকেন্দ্র থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন- যা তোমরা শুনে থাকতে পারো’। আকবর ভাইয়ের হয়তো ধারণাই ছিলো না, সেদিন বৃটেনে আমাদের মহলে ঐ মেজর জিয়া; ঐ অজানা চরিত্রটি কী পরিমান চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছিলো, আর কী পরিমান পরিচিত হয়ে উঠেছিলো। তিনি এখন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর উপপ্রধান হিসাবে কানাডায় একটি কমনওয়েলথ সামরিক সম্মেলনে যোগদানের পথে লন্ডনে দু’একদিনের যাত্রাবিরতি করেছেন। সঙ্গে এমন কোন বাড়তি টাকা নেই যে কিছু ব্যক্তিগত কেনাকাটা করতে পারেন তাই দু’শ পাউন্ডের মতো সামান্য টাকাও তাঁকে পথে অপরিচিতের কাছে ধার করতে হচ্ছে (যা কয়েকদিনের মধ্যেই তিনি আকবর ভাইয়ের মাধ্যমে বাসায় শোধ করে দিয়েছিলেন)। দেশের কিংবদন্তীর মত বীর এবং বরেণ্য একজন উচ্চ সামরিক কর্মকর্তা সাধারণ মানুষের মত এমন বিনীত জীবন, এমন সামান্য প্রয়োজনেও জাতীয় ক্ষমতা ব্যবহারের অনিহা- আমাকে দারুণ মুগ্ধ করল; সাউদাম্পটনে আমার বন্ধুরাও শুনে অবাক। তার মানে যারা কর্তৃত্বে আছেন তাঁরা সবাই যদি এই নীতিতে চলছেন ধরে নিই তা হলে তো আমাদের কল্পনার বাংলাদেশ এবার সত্যি হতে চলছে।”

(তথ্যসূত্র: অধ্যাপক মুহাম্মদ ইব্রাহিম, জীবনস্মৃতিতে মানুষ দেশ বিজ্ঞান, দ্বিতীয় খন্ড, মাওলা ব্রাদার্স, ঢাকা, ২০১৬; পৃষ্ঠা-২৩৩)

বাংলাদেশের ক্ষণজন্মা প্রবাদপুরুষ, জিয়াউর রহমানকে নিয়ে দেশে ও দেশের বাইরের বাংলা ভাষাভাষী নাগরিক স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছিলো বলেই কায়েমী স্বার্থবাদীরা জিয়ার বিরোধীতা করতে শুরু করে। এখনো সেই রক্তেরই ধারাবাহিকতায় তাদের ছাও-পোনাগুলো একই দৃষ্টিতে জিয়ার বিরোধীতা করে থাকেন- কেননা, বাংলাদেশ মেরুদন্ড সোজা করে দাড়াক; আমাদের জাতীয় ইতিহাস সমৃদ্ধ হোক, শক্ত ভিত্তির উপর দাড়াক; তারা কিন্তু তা চায় না। জিয়াউর রহমান ছিলেন এই বাংলার স্বপ্ন পুরুষ; এটিই ইতিহাসের সত্য।

৭.

“সবাই আমরা যুদ্ধ করেছি, সৈনিক, জনগণ সবাই; আর সেই ঝুকির কথা ? জাতির সেই চরম সংকটের মুহুর্তে কাউকে না কাউকে তো এগিয়ে আসতে হয়, নিতে হয় দায়িত্ব। আমি কেবল সে দায়িত্বই পালন করেছি। নেতারা যখন উধাও হয়ে গেলো, সিদ্ধান্ত নেবার মত কেউ রইলো না, তখন জাতির পক্ষ থেকে সবচেয়ে বড় সিদ্ধান্তটি আমাকে ঘোষণা করতে হল। কারণ, জাতিকে তো আর অসহায় নিরস্ত্র অবস্থায় একটি সর্বাত্মক ধ্বংসের মুখে ফেলে রাখা যায় না। আমি জানতাম, যুদ্ধের জন্যে জাতি মানুষিকভাবে প্রস্তুত হয়েছে। শুধু বাকি সেই যুদ্ধের জন্যে একটি সঠিক সময় বেছে নেয়া। ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে সেই চূড়ান্ত সময়টি এলো, যার জন্যে গোটা মাস আমরা রুদ্ধশ্বাস হয়ে প্রতিক্ষা করছিলাম। সময় আসার সাথে সাথেই আমি সেই ঘোষণা অস্টম ব্যাটেলিয়ানের আমার সহযোদ্ধাদের জানিয়ে দিলাম। মুহুর্তের মধ্যেই তারা প্রস্তুত হল আর যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ল, পরদিন চট্রগ্রাম রেডিও থেকে সে সিদ্ধান্তের কথা জাতিকে জানালাম, জাতি সমস্বরে সাড়া দিল সেই ডাকে।”

(তথ্যসূত্র: এস আবদুল হাকিম, জিয়া কে যেমন দেখেছি, কমল কুঁড়ি প্রকাশন, ঢাকা, ২০০৩; পৃষ্ঠা-২৪: সাংবাদিক সানাউল্লাহ নূরীর সাথে দেওয়া প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের সাক্ষাতকার)

অনেকেই হয়তো খেয়াল করেছেন, মুক্তিযুদ্ধের ঠিক ইতিহাস লেখার কারণে মহামান্য হাইকোর্ট বীর মুক্তিযোদ্ধা অলি আহমেদ সাহেবের একটি বইকে বাজেয়াপ্ত করেছে। জিয়াউর রহমান কিংবা অলি আহমেদরা যদি জীবনের সর্বোচ্চ ঝুকি নিয়ে সেদিন দেশটাকে স্বাধীন করার যুদ্ধে না নামতেন, তাইলে আজকের হাইকোর্ট কিভাবে গঠিত হতো ? কিভাবে আসতো তখন এমন রায় ?? জোর করে ইতিহাসের গতিপথ রুদ্ধ করে দেওয়ার এই প্রচেষ্টা মেনে নেওয়া সত্যিই কষ্টকর। জন্মসূত্রে বাংলাদেশের একজন আইনানুগ নাগরিক হিসাবে এখন যদি আমি প্রশ্ন তুলি, ১১ এপ্রিল ১৯৭১ সালের আগে যেহেতু বাংলাদেশের সরকার, সংবিধান কিংবা কোন বৈধ আদালতের কাঠামোর কথাই উল্লেখ নাই; তাহলে কোন ক্ষমতাবলে ২৬ মার্চ ১৯৭১ ঘটনাবলীকে আদালত দিয়ে রেটিফাই করা হচ্ছে ?? স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র (অন্তর্বতীকালীন সংবিধান) জারির আগে বাংলাদেশের কি কি/কোন কোন বিষয়ের উপর সার্বভৌমত্বের অস্তিত্ব বিদ্যমান ছিলো ?? আগের ঘটনা পরের আইনে কি আদৌ বিচার করা যায় ?? বিশ্ব আইন/প্রথা/উদাহারণ কি বলে ??

৮.

প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান শহীদ হওয়ার ৮/১০ দিন পরের ঘটনা। DG NSI ও তার এক বন্ধু জিয়াউর রহমানের মাজারে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে যান। গিয়ে দেখেন, একদল ভিক্ষুক (কেউ প্রতিবন্ধী, কেউ বা অঙ্গহানিযুক্ত, কেউ খুবই জীর্ণশীর্ণ; ছেড়া ফাটা মলিন কাপড় পরা) জিয়ার মাজারে ফুল দিতে এসেছে। DG NSI এর বন্ধু এই কৌতুহলটি সংবরণ করতে পারলেন না। ভিক্ষুকদের জিজ্ঞাসা করলেন, “তোমরা কেন ফুল দিচ্ছ ? দেশের রাজা মরলে আবার নতুন রাজা আসবে, তোমাদের তো কোনো অবস্থার পরিবর্তন হবে না। তোমাদের কি স্বার্থ ?”

এবারে ভিক্ষুকদের মধ্য থেকে একজন কান্না ভেজা গলায় জবাব দিতে শুরু করলো,

“আরে সাহেব, আপনি কি বুঝবেন আমাদের কি ক্ষতি আর আমাদের কি বেদনা ? আমরা ভিক্ষা করে খাই। কারোও কাছে আমাদের সম্মান নেই। আপনাদের কাছে হাত পাতলে কখনো কিছু দেন না, বেশীর ভাগ সময়ই তাচ্ছিল্য ভরে তাড়িয়ে দেন। যখন কিছু দেন, তখনোও ভাল মনে দেন না। আমাদেরকে আপনারা মানুষ বলেও গণ্য করেন না। কিন্তু এই লোকটা আমাদের মানুষের সম্মান দিতেন, আমাদেরকে মানুষ বলে মনে করতেন। উনি যখন গাড়িতে চড়ে বঙ্গভবনে যেতেন, তখন আমাদের সালামের জবাব দিতেন, আমাদের দিকে হাত নাড়িয়ে যেতেন। আমরা তো তাঁর কাছ থেকে কোনদিন ভিক্ষা পাই নি কিন্তু মানুষের মর্যাদা পেয়েছি। এর বেশী আর কে কি পেতে পারে ? তাই আমরা শ্রদ্ধা জানাতে এসেছি। আমরা কি ফুল দিতে পারি ? মাত্র কয়েকটা ফুল দিয়ে গেলাম। ইচ্ছা হয় আমাদের সমস্ত অন্ত:করণ উনার পায়ে রেখে যাই।”

(তথ্যসূত্র: এস আবদুল হাকিম, জিয়া কে যেমন দেখেছি, কমল কুঁড়ি প্রকাশন, ঢাকা, ২০০৩; পৃষ্ঠা- ১২৭)

মানুষের হৃদয় নিংড়ানো ভালবাসা কিভাবে পেতে হয়, এটি কেমন জিনিস জিয়াউর রহমান তাঁর জীবদ্দশায় এবং মহাপ্রয়ানের পরেও প্রমান করে গেছেন। বাংলাদেশের ক’জন রাষ্ট্রনায়কের ভাগ্যে এমন অমূল্য সম্মান মিলেছে ? অথচ নি:স্বার্থ এই দেশপ্রেমিককেও কত কটু কথাই না শুনতে হয়- আসলে যারা ব্যক্তির যোগ্য সম্মান দিতে জানে না, তারা অন্ধ, বধির, বোবা; তারা জাতির ভ্রষ্ট সন্তান। এদের কী শুভ বুদ্ধির উদয় হবে না ?

৯.

“যারা মুক্তিযোদ্ধা বলে উঁচু গলায় দাবি করে, তাদের বেশীর ভাগই তো ভয়ে দেশ ছেড়ে পালিয়েছিল, মুক্তিযুদ্ধ তারা কিভাবে করলো ? যেসব নেতারা মুক্তিযোদ্ধা বলে গলা ফাটায় তাদের কীর্তি কাহিনী আমার জানা আছে। প্রয়োজন হলে আমি তাদের ইতিহাস ফাঁস করবো। স্বাধীনতা একটি রাজনৈতিক প্রক্রিয়া, যখন কোনো দেশে স্বাধীনতা যুদ্ধ হয়, তখন পার্টি ভিত্তিক হয় না। স্বাধীনতা যুদ্ধ হয় জাতীয় সত্তার ভিত্তিতে এবং ঠিক এটাই হয়েছিলো ১৯৭১ সালে। সেই স্বাধীনতা যুদ্ধকালে আপনারা জানেন, বিভিন্ন সময় নেতৃবর্গের মধ্যে কেউ কেউ পাকিস্তানের সাথে কনফেডারেশন করবার চেষ্টা চালিয়েছিলেন, তারা রাজনৈতিক ভাবে দূরদৃষ্টি সম্পন্ন ছিলেন না এবং তাদের গদী ও ক্ষমতা সবচেয়ে বড় ছিলো। সেই জন্যে তারা চেয়েছিলেন যে অনতিবিলম্বে একটা মিটমাট করে অল্পস্বল্প ক্ষমতা হলেও সেই ক্ষমতার হাল ধরতে; তারা স্বাধীনতায় উৎসাহী ছিলেন না। কিন্তু দু:খের বিষয় যে বিভিন্ন জনসভায় তারা একচেটিয়াভাবে স্বাধীনতার রক্ষক হিসাবে নিজেদের দাবি করে।”

(তথ্যসূত্র: এস আবদুল হাকিম, জিয়াকে যেমন দেখেছি, কমল কুঁড়ি প্রকাশন, ঢাকা, ২০০৩; পৃষ্ঠা-৮৫)

DG NSI এর সাথে জনাব জিয়াউর রহমানের একান্ত আলাপচারিতা; সময় ১৯৭৯ সালের কোন এক সময়।

আজকের বাস্তবতায় মুক্তিযুদ্ধ বেচে খাওয়াদের প্রতি এই আলাপচারিতা একেকটা চাপটেঘাত। আর কয়েকটা দিন বেঁচে থাকলে প্রত্যেকটা ডিস্ট্রিবিউটর উলঙ্গ হয়ে যেতেন ! তাই দেশী-বিদেশী চক্রান্তে বাংলার সবেধন নীলমণিটাকে হত্যা করেছে বাংলারই কিছু কুখ্যাত সন্তান; আর কিছুদিন খুবই প্রয়োজন ছিলো। তবে জিয়া বেঁচে থাকবেন, অনন্তকাল- মানুষের অন্তরে অন্তরে।

১০.

বাংলাদেশের ঘটনাবহুল ৭ নভেম্বরের সিপাহী জনতার বিপ্লবের পরে ১১ নভেম্বর ১৯৭৫ রংপুর ব্রিগেড কমান্ডে আরো একটি সেনা বিদ্রোহের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি খুবই জটিল আকার ধারণ করলো। ১৩ নভেম্বর ১৯৭৫ রংপুর সেনানিবাসে জওয়ান ও অফিসারদের উত্তেজনা প্রশমনে জিয়াউর রহমানের সাথে নির্ধারিত মিটিং; কি ঘটতে পারে আসন্ন মিটিংয়ে ? সিনিয়র সামরিক কর্মকর্তারা খুবই উদ্বিগ্ন। পরিস্থিতি বিবেচনায় সবাই পরামর্শ দিলো সেখানে না যাওয়ার জন্য: কিন্তু সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে জিয়াউর রহমান নিদৃষ্ট দিনেই রংপুর সেনানিবাসে পৌছলেন। প্যারেড মাঠে পৌছানোর পর জওয়ানেরা জিয়াকে ঘিরে ধরে শ্লোগান দিতে থাকে, “জিয়া ভাই জিন্দাবাদ”। জিয়া এক্ষণে এক মূহুর্ত দেরীও করলেন না- গর্জে উঠলেন, “শ্লোগান বন্ধ করো; আমি এখানে এসেছি সেনাপ্রধান হিসাবে, তোমাদের ‘জিয়া ভাই’ হয়ে নয়।” জিয়াউর রহমান একই ঘটনার সমুক্ষীন হন ঢাকা সহ আরো দু একটি জায়গায়: কিন্তু প্রত্যেকটি জায়গায়ই জিয়ার হুংকারে উচ্ছৃংখল সেনাবাহিনী এক্কেবারে স্তম্ভিত সোজা হয়ে যায়। অত্যন্ত শক্তহাতেই ঝুকি নিয়ে সেনাবাহিনীতে চেইন অব কমান্ড প্রতিষ্ঠা করলেন। এটি স্বাধীনতা ও ১৫ আগস্ট পরবর্তি বাংলাদেশের সবচেয়ে আলোচিত ঘটনা- বীরত্বের ঘটনা। সার্বভৌমত্ব বাঁচানোর ঘটনা।

(তথ্যসূত্র: মাহফুজ উল্লাহ, প্রেসিডেন্ট জিয়া, অ্যাডর্ন, ঢাকা, ২০১৬; পৃষ্ঠা- ২৫৬)

রাষ্ট্র, সমাজ, ব্যক্তির ক্ষেত্রে এখন তেলবাজদের জয়জয়কার; পদের যে একটা ওয়েট আছে এইটা সরকার, রাজনৈতিক দল, ব্যক্তি প্রত্যেকেই ভুলে যায়। তেলে চুপচুপে হয়ে গলে যান !! আসলে নেতৃত্বগুণ হচ্ছে, পদের ওয়েট বজায় রাখা, নিজের ব্যক্তিত্ব বজায় রাখা। জিয়াউর রহমান তার জীবন ও কর্ম দিয়ে আমাদের বুঝিয়ে দিয়ে গেছেন যে, “তেলবাজদের দ্বারা প্রভাবিত হতে নেই। তেলবাজদের ইনটেনশন ভাল থাকে না। তেলের মাধ্যমে যা পায়, আবার তেলেই তা বিসর্জন দেয়।” এখানে আদর্শিক বন্ধন একেবারেই অনুপস্থিত থাকে। তাই তেলের ব্যবহার সমন্ধে সবার সচেতন থাকা খুবই জরুরী। এটাই জিয়াউর রহমানের শিক্ষা।

লেখকঃ এমফিল গবেষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, সাবেক ফেলো ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *