বাকশালে যোগ দিয়েছিলেন সেসব সাংবাদিক

:: তাহসিন আহমেদ ::

১৯৭৫ সালে বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগ (বাকশাল) প্রতিষ্ঠার পর সাংবাদিক ও সম্পাদকদের বড় একটি অংশ দলে দলে বাকশালে যোগ দিয়েছিলেন।

যাদের মধ্যে ছিলেন- মতিউর রহমান (একতা, ভোরের কাগজ, প্রথম আলো), ইকবাল সোবহান চৌধুরী (অবজারভার), গিয়াস কামাল চৌধুরী (বাসস,ভয়েজ অব আমেরিকা, খবরপত্র), রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ (ডেইলি স্টার, নিউজ টুডে), আলমগীর মহিউদ্দিন (নয়া দিগন্ত), আনোয়ার হোসেন মঞ্জু (ইত্তেফাক), কেজি মোস্তফা (ইনসাফ, ইত্তেফাক, মুক্তকণ্ঠ), জগলুল আহমেদ চৌধুরী (বাসস), রশিদ তালুকদার (আলোকচিত্রী, ইত্তেফাক) আজিজ মিসির (বাংলার বাণী, সাপ্তাহিক চিত্রালী, দৈনিক বার্তা)।

সাপ্তাহিক হলিডে সম্পাদক এনায়েতউল্লাহ খান, মর্নিং নিউজ সম্পাদক এবিএম মুসা,  দৈনিক বাংলার সহ-সম্পাদক কবি শামসুর রাহমান,  বিএফইউজে সভাপতি নির্মল সেন এবং ডিইউজে সভাপতি কামাল লোহানী, সিনিয়র সাংবাদিক দৈনিক পূর্বদেশের আবু জাফর শামসুদ্দীন বাকশালে যোগ দেননি। বাকশাল মেনে নিতে পারেননি বলে ১৯৭৩ সালের নির্বাচনে জয়লাভ করা সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এবং জেনারেল এমএজি ওসমানী পদত্যাগ করেছিলেন।

১৯৭৫ সালের ২৩ মে বাকশালে যোগ দেন ২২৪ জন সাংবাদিক। এরপর যোগ দেন আরও ১৫০ জন। ১১ জুন যোগ দেন ৩০৬ জন সংবাদকর্মী। এর মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত ছিল একযোগে দৈনিক ও সংবাদ সংস্থার ৯ জন সম্পাদকের যোগদানের ঘটনা। যোগদানকারী ৯ জন সম্পাদক ছিলেন অবজারভার-এর ওবায়দুল হক, পূর্বদেশ –এর এহতেশাম হায়দার চৌধুরী, দৈনিক বাংলার নুরুল ইসলাম পাটোয়ারী, সংবাদ-এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক বজলুল রহমান, মর্নিং নিউজ-এর শামসুল হুদা, বাসস-এর প্রধান সম্পাদক জাওয়াদুল করিম, বাংলাদেশ টাইমস ও বাংলার বাণীর নির্বাহী সম্পাদক শহিদুল হক, বাংলাদেশ প্রেস ইন্টারন্যাশনাল-এর প্রধান সম্পাদক মিজানুর রহমান এবং ইত্তেফাক-এর আনোয়ার হোসেন মঞ্জু।

পরদিন যোগ দেয়া সংবাদিকদের মধ্যে মর্নিং নিউজ-এর ৬৮ জন, আজাদ-এর ৫২ জন, ইত্তেফাক-এর ৪৮ জন, সংবাদ-এর ৪৩ জন, পূর্বদেশ-এর ২৪ জন, আবদুল গাফফার চৌধুরী সম্পাদিত জনপদ-এর ২০ জন ও সাপ্তাহিক চিত্রালীর ৭ জন।

১৬ জুন ৪টি দৈনিক, ১২২টি সাপ্তাহিক ও মাসিক পত্রিকা ছাড়া দেশের সকল পত্রপত্রিকার ডিক্লারেশন বাতিল করা হয়। বাকশালে যোগ দেয়া সম্পাদকদের মধ্যে নুরুল ইসলাম পাটোয়ারীকে ইত্তেফাক, ওবায়দুল হককে বাংলাদেশ টাইমস এবং এহতেশাম হায়দার চৌধুরীকে দৈনিক বাংলার সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়।

যারা বাকশালে যোগ দেননি

সাপ্তাহিক হলিডে সম্পাদক এনায়েতউল্লাহ খান, মর্নিং নিউজ সম্পাদক এবিএম মুসা,  দৈনিক বাংলার সহ-সম্পাদক কবি শামসুর রাহমান,  বিএফইউজে সভাপতি নির্মল সেন এবং ডিইউজে সভাপতি কামাল লোহানী, সিনিয়র সাংবাদিক দৈনিক পূর্বদেশের আবু জাফর শামসুদ্দীন বাকশালে যোগ দেননি।

বাকশাল মেনে নিতে পারেননি বলে ১৯৭৩ সালের নির্বাচনে জয়লাভ করা সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এবং জেনারেল এমএজি ওসমানী পদত্যাগ করেছিলেন।

বাকশালের সদস্য ৫২৮ সাংবাদিক

ইত্তেফাকের আনোয়ার হোসেন মঞ্জু (সম্পাদক) রাহাত খান, হাবিবুর রহমান মিলন, গোলাম সারওয়ার, হাসান শাহরিয়ার, জহিরুল আলম, শফিকুল কবীর, আবুল কালাম আজাদ, শাহজাহান রেজা, সফিউল্লাহ, শিলাব্রত বড়ুয়া, ফিরোজ আহমদ, জহিরুল আলম, আবদুল বাতেন, জাকারিয়া মিলন, খায়রুল আলম, তোফাজ্জল হোসেন, আফতাব আহমেদ, জাহিদুজ্জামান ফারুক, শাহীন রেজা, শাহজাহান আলী আজাদ, বজলুর রহমান, আবু সুফিয়ান, এমদাদুল হক, আব্দুর রশীদ, ইয়াসিন আহমেদ, আবু তাহের, নজমুল হক, শাহাবুদ্দীন ভূইয়া, সিরাজুল হক, কাজী মোস্তাফিজুর রহমান, সৈয়দ রায়হান উল্লাহ, আলী আজাদ।

ডেইলী অবজারভারের ওবায়দুল হক (সম্পাদক), ইকবাল সোবহান চৌধুরী, রিয়াজউদ্দিন আহমেদ, বুদ্ধদেব মুখার্জি, তাজুল ইসলাম চৌধুরী, মঞ্জুর কাদের আনোয়ার হোসেন, খলিলুর রহমান, তরুণ তপন চক্রবর্তী, জোসেফ ইজায়েক, সিনিয়র সাব এডিটর এ এস এম এ খালেক, সাহদুজ্জামান খান, সৈয়দ মর্তুজা আলী, নজরুল ইসলাম, আজিজ আহমদ, জাওয়াদুর রহমান, মোহাম্মদ আমির হোসেন, মোহাম্মদ নূরুল হুদা, মাশুকুল হক, মোহাম্মদ মফিজ উল্লাহ, রফিকুল ইসলাম, কাজেমউদ্দিন আহমদ, মোহাম্মদ আতিকুল্লাহ, মাইকেল কলেট, খন্দকার আবুল হাসান, মাহমুদুল হক চৌধুরী, এম রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, মোহাম্মদ আবু হোসেন, শেখ শহীদুল ইসলাম, আবদুল গোফরান, মোহাম্মদ আশরাফ আলী, আবদুল হাই, মোহাম্মদ সিদ্দিক উল্লাহ, ফজলুল বারী চৌধুরী, আবদুল মতিন, শ্রী মদন, হাসানুজ্জামান চৌধুরী, মোহাম্মদ মাছুম, আনিস আহমেদ, কাজী মকসুদুল হাসান, মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, শহিদুল ইসলাম, ডিপি বড়ুয়া, এএসএম হাবিবউল্লাহ, আব্দুর রহিম, ফটোগ্রাফার মোয়াজ্জেম হোসেন বুলু ও মোকাদ্দস আলী।

জাতীয় প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আজিজ মিসির (বাংলার বানী), ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক আলী নূর (পূর্বদেশ) কোষাধ্যক্ষ জহিরুল হক।

বাংলার বানীর আজিজ মিসির, ফারুক কাজী, আব্দুল করিম, নাজিমুদ্দিন মানিক, অভিনয় কুমার দাস, মতিউর রহমান, আমির খসরু, আব্দুস সালাম, সৈয়দ মোস্তফা হোসেন, খন্দকার তোজাম্মেল হোসেন, রকিব সিদ্দিকী, মোহাম্মদ মফিজুর রহমান, আবদুল করিম মোল্লা, মোহাম্মদ আবদুর রহমান, কাজী রশিদুল পাশা, শেখ গোলাম মোস্তফা, মতিউর রহমান, আশরাফ খান, ওয়াহিদ রশীদ মুরাদ, আবিদুল রহমান, কাজী নজরুল ইসলাম, সাদেকুল হক, আব্দুস সাত্তার, জাহানারা বেগম, আবদুল মাজেদ চৌধুরী, ফটোগ্রাফার রফিকুর রহমান, সালেহ আহমেদ, এ ওয়াদুদ ফরিদী, হামিদুর রহমান, নূরুল ইসলাম মোড়ল, শহীদুল হক, ওয়াকিল আহমেদ, মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ, মফিজুর রহমান, বিমান ভট্টাচার্য, সংশোধনী বিভাগঃ আবদুল মান্নান সরকার, হালিমুর রশীদ, মোহাম্মাদ নূরুল ইসলাম।

বাসসের জাওয়াদুল করিম (সম্পাদক), জগলুল আহমেদ চৌধুরী, স্বপন কুমার সাহা, আজিজুল ইসলাম ভূইয়া, হামিদুজ্জামান, নজরুল ইসলাম, সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান, সৈয়দ মাহমুদ, জহুরুল আলম, তবিবুল ইসলাম, সৈয়দ আহমদ জামান, ইরসাদুল হক, আমিনুল ইসলাম, এন কে আলম চৌধুরী, এম এ মোহসীনা, মোজাম্মেল হক, এহসানুল করিম হেলাল, শামসুদ্দিন আহমেদ মেসবাহউদ্দিন আহমেদ, হাসানুজ্জামান খান, মোসানুজ্জামান, দেলোয়ার হোসেন।

পূর্বদেশের এহতেশাম হায়দার চৌধুরী (সম্পাদক), আজমল হোসেন খাদেম, মতিউর রহমান চৌধুরী, হেলাল হাফিজ, খালেদা এদিব চৌধুরী, সৈয়দ রেদোয়ানুর রহমান, আমিনুল ইসলাম, সালাউদ্দিন চৌধুরী, মাওলা চৌধুরী, আনোয়ার আহমদ, শাহানুর খান, শামসুল হক আলী নূর, ইউসুফ পাশা, মাজেদুর রহমান বিশ্বাস, ফজলে রশিদ, রঞ্জু ইসলাম, কাজী হাসান হাবিব, মেহেরুন্নেসা, জিয়াউল হক, আব্দুল মান্নান, হাফিজ আহমদ, নূরুল ইসলাম, আব্দুল মতিন, ওহিদুর রহমান, আব্দুর রশীদ,হালিম চৌধুরী, সাজ্জাদুল করিম, রঞ্জন কিশোর চৌধুরী, ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, সামিউল আহমদ খান, সলিমুল্লাহ, আবু ইউসুফ, সাবিরুদ্দীন আহমদ, আঃ মান্নান, ওয়াসেকপুরী আব্দুল মজিদ কামালী, শহীদ এনায়েত উল্লাহ, আবুল হাশেম, জহিরুল হক চৌধুরী, মোহাম্মদ আবুল কালাম, গোলাম রহমান, লুৎফর রহমান, শফিকউদ্দিন আহমদ।

মনিং নিউজের শামসুল হুদা (সম্পাদক), আবুল হাসান আহমেদ আলী, আশরাফ আলী, এম ফখরুদ্দিন, সৈয়দ কামরুজ্জামান, রহমত আলী, আনোয়ার আলী চৌধুরী, মোহাম্মদ ইসা, আজিজুল হক, আবু জাফর শেখ, সঞ্চয় বড়ুয়া, হামিদুজ্জামান, বিনোদ দাস গুপ্ত, বার্ণার রোজারিও, জয়নাল আবেদীন, ওয়াহিদুল ইসলাম, সুফিয়া সুলতানা, আনোয়ারা বেগম, সৈয়দা শাহানা, আমিনুল ইসলাম, বাদল নাগ, ইকরামুল হক, নূরউদ্দিন আহমেদ, মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, শামসুল হক, লাল ভাই, আমিনুর রহমান, নিজামুদ্দিন, খন্দকার এ রাজ্জাক, খন্দকার মশিউজ্জামান, জালাল উদ্দিন, মনিরুজ্জামান, এম ডি আর রব, হাবিলুদ্দিন, সেলিম রাব্বানী, এম ডি নোয়াবালী।

দৈনিক বাংলার নূরুল ইসলাম পাটোয়ারী (সম্পাদক), আহমেদ হুমায়ুন, সানাউল্লাহ নূরী, মাসির হোসেন, তারেক শামসুর রহমান, আহমেদ নূরে আলম, সুনীল ব্যানার্জি, আবদুল হান্নান, মঈনুল আলম, খালেকুর রহমান, আব্দুল হান্নান, আমিরুল ইসলাম, সৈয়দ আব্দুল খায়ের, আবদুল খালেক খান,মোহাম্মদ মাহতাব, আজহার আলী, আফজাল প্রামাণিক, ফখরুদ্দিন ইকবাল, জহিরুল হক, আব্দুল আউয়াল, শামসুল আলম, ইসহাক চাখারী, মোহাম্মদ শামসুল ইসলাম, আলমাজী, গোলাম মওলা, আনসারী, মোখলেছুর রহমান, রেজওয়ান হোসেন সিদ্দিকী, গোলামুর রহমান, শওকত আনোয়ার, মাফরুহা চৌধুরী, আফলাতুন, আবদুল খালেক, আলমগীর সোবহান, আনোয়ার হোসেন, নির্মলেন্দু ভৌমিক, মোহসীন আলী খান, মোস্তফা কামাল, আব্দুস সালাম, মোহাম্মদ সালাউদ্দিন আব্দুস শহীদ, হেদায়েত হোসেন, মোশাররফ হোসেন, আব্দুল হালিম, মোহাম্মদ মাসুদ।

দৈনিক আজাদের সুলতান আহমেদ, সাদরুল হাসান খান, শফিকুল আলম আজাদ, আব্দুল মালেক, জিএম সোবহান, শেখ রকিব উদ্দিন, শফিকুল আলম কাজল, মহিউদ্দিন শেখ, ফজলুর রহমান, আবদুল মান্নান হাওলাদার, নোমান চৌধুরী, সাইয়েদা খুদসিয়া হাসান, হোসনে আরা বেগম, শাহজাহান আলী, মোজাফফর হোসেন, এ এই এম হোসেন, এম সোবহান আলী, ফাতেমা আনসারী, মনওয়ার হোসেন, শফিউল আলম, মোহাম্মদ নূরুল হাই, সৈয়দ শফিউর রহমান, গাজী রফিকুল ইসলাম, কাজী আফতাব উদ্দিন, মোকতাদির আহমেদ রহমান, মতিউর রহমান বাচ্চু।

সংবাদ সংস্থা এনার মতিয়ুর রহমান, গাজীউল হাসান খান, সেরাজউদ্দিন, হোসেন নূর আলম, মোহাম্মদ উল্লাহ, শাহাবুদ্দিন আহমেদ, তুঘলক খান, সিরাজুল কবির।

দৈনিক জনপদের কেজি মুস্তাফা, বোরহান আহমদ, আব্দুর রহমান খান, খলিলুর রহমান শরীফ, বদরুদ্দীন আহমেদ চৌধুরী, আবদুল ওয়াহাব, মোসলেম আলী বিশ্বাস, মাহবুবুর রশিদ, সৈয়দ আকরাম, আলতাফ উদ্দিন আহমেদ, মোহাম্মদ রমজান আলী, সুফি গোলাম মহিউদ্দিন, মোহাম্মদ ইউসুফ, নজীর আহমদ, হামিদুল ইসলাম, মোহাম্মদ হেমায়েত উদ্দিন, নজরুল ইসলাম বুলবুল, শাহাদাত হোসেন বুলবুল, মোহাম্মদ আবদুল হাই, আফতাব উদ্দিন আহমেদ, আতাউল হক মল্লিক, ফিরোজ উদ্দিন রহমত ই খোদা, মোজাম্মেল হক, বাবুল আখতার, মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক, কাজী রশিদ, এস এম গোলাম মওলা, আমিনুল ইসলাম, আবদুল কাদের, জাফর আলম, খলিলুর রহমান শরীফ, ওবায়দুল হক কামাল। মোজাম্মেল হক, এহসানুল করিম হেলাল, শামসুদ্দিন আহমেদ।

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার জাওয়াদুল করিম, জগলুল আহমেদ চৌধুরী, স্বপন কুমার সাহা, মোকাররম হোসেন, এন কে আলম চৌধুরী, আমিনুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম, সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান, সৈয়দ আহমদ জামান, ইরশাদুল হক, মোহাম্মদ মোসানুজ্জামান, সৈয়দ মাহমুদ, নজরুল ইসলাম, সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান, সদরুল হাসান, মেসবাহউদ্দিন আহমেদ, এ এফ এম হাবিবুর রহমান, এম এ মোহসীন, সৈয়দ মাহমুদ, জহুরুল আলম, মোহাম্মদ মোসানুজ্জামান, একেএম তবিবুল ইসলাম।

দৈনিক সংবাদের বজলুর রহমান, সন্তোষ গুপ্ত, আবু আল সাইদ, বেবী মওদুদ, জীবন চৌধুরী, তোজাম্মেল আলী, মোহসীন খায়রুল আনাম, এম বশির আহমেদ, রেজাউল হক সরোজ, হারুনুর রশীদ খান, আহসান আহমেদ, কমদা প্রসন্ন ভৌমিক, জিএম ইয়াকুব, ওয়াসিল উদ্দিন, হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, রওশন আরা জলি, অমূল্য সরকার, আবদুল মজিদ, জীবন কুমার চক্রবর্তী, মিজানুর রহমান, অজর বড়ুয়া, হাসান আলী, আবুল হাসনাত, বাসুদেব ধর, আবুল হাশেম, কাজী জাফরুল ইসলাম, রুহুল আমিন উদবেল, মোহাম্মদ আতাউর রহমান, মজিবর রহমান বাদল, সুধীর চৌধুরী, কাজী আনোয়ারুল ইসলাম, চপল বাশার, হাবিবউল্লাহ রানা, আব্দুর রহমান, সৈয়দ মাহবুবুল আলম, এন এম আয়াতুল্লাহ, মোহাম্মদ নূর জালাল, আবদুল মোমিন, বাবু লাল সাহা, শহিদুল ইসলাম, শান্তিময় বিশ্বাস, মোহাম্মদ নূর আলম, স্বপন দত্ত, বিপদ ভজন সেন কর্মকার।

বাংলাদেশ টাইমসের শহীদুল হক, আলমগীর মহিউদ্দিন, মাহফুজ আনাম, আমানউল্লাহ কবীর, মোস্তফা তারিকুল আলম, মুহাম্মদ মোজাফফর হোসেন, হাসানুজ্জামান খান, এ এম মোফাজ্জল, খন্দকার মনিরুল আলম, সৈয়দ শাহজাহান, মোহাম্মদ আমিনুল হক, আশরাফুল আলম, মোহাম্মদ বজলুল হক, মোহাম্মদ শমসের তাবরেজ খান মন্টু, মোহাম্মদ শাহজাহান আলী, শামিম আহমেদ নাসিম, মুজাম্মেল হক, মোহাম্মদ আমজাদ হোসেন, আসাদুজ্জামান খান, কাজী মোহাম্মদ বখশ, আমিন আহমেদ চৌধুরী, সদরুল হাসান, মৃণাল কৃষ্ণ রায়, আব্দুল্লাহ এম হাসান, হোসেন কামাল, এ এন এম লুৎফর রহমান, এম ডি আর খালেক ভুইঁয়া, আইউব রেজা।

বিচিত্রার শেখ আবদুর রহমান, আব্দুর রাজ্জাক, সৈয়দ এনায়েত, আতিয়ার রহমান।

আতিয়ার রহমান, বিএ আজাদ (গণকন্ঠ), আফতাব উদ্দিন (দেশবাংলা), মাহবুবুর রহমান রুশো (দি পিপল), মোহাম্মদ মুতরিব (দি পিপল), সৈয়দ এনায়েত (চিত্রালী) মোসলেম খান (সমাজ)।

২ thoughts on “বাকশালে যোগ দিয়েছিলেন সেসব সাংবাদিক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *