মূল্যস্ফীতির লাগাম টানতে নীতি সুদহার ফের বাড়ালো 

:: নাগরিক প্রতিবেদন ::

মূল্যস্ফীতির লাগাম টানতে বাংলাদেশে বাড়ানো হল নীতি সুদহার। এই সুদহার ২৫ বেসিস পয়েন্ট বাড়ানো হয়েছে। এতে রেপো সুদহার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ। নতুন এ সুদহার আগামী রোববার থেকে কার্যকর হবে।

রেপো বা পুনঃক্রয় চুক্তির মাধ্যমে ব্যাংকগুলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ধার নিয়ে থাকে। ব্যাংকের কেনা সরকারি ট্রেজারি বিল ও বন্ড জমা রেখে স্বল্প সময়ের জন্য এই ধার দেওয়া হয়। একইভাবে বাজার থেকে টাকা তোলার প্রয়োজন হলে রিভার্স রেপো বা বিপরীত পুনঃক্রয় চুক্তির মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংক টাকা তুলে নেয়। রেপোর পাশাপাশি স্পেশাল রেপোর মাধ্যমেও ব্যাংকগুলোকে জরুরি ভিত্তিতে ধার দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। এখানে সুদহার বাড়িয়ে ৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংকের মনিটারি পলিসি কমিটির ৫৬তম সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

গত ২৭ জুন রেপোর সুদহার ৫০ বেসিস পয়েন্ট বাড়িয়েছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। এর আগে ২৯ মে বাড়ানো হয়েছিল ৫০ বেসিস পয়েন্ট।

ব্যাংকগুলো বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে যে টাকা ধার নেয়, তাই রেপো নামে পরিচিত। রেপোর সুদহার বাড়ালে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ধার করা টাকার জন্য বেশি সুদ গুনতে হয়।তাতে ধারের প্রবণতা কমে আসে, কমে টাকার প্রবাহ। আর টাকার প্রবাহ কমলে পণ্য ও সেবার মূল্যের উপর এর প্রভাব পড়ে। মূল্য কিছুটা কমে আসে অথবা মূল্য বৃদ্ধির গতি কমে যায়।

রেপোর সুদহার বাড়ানোর বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে,অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কার্যক্রম শক্তিশালী হলেও চলমান রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সরবরাহব্যবস্থায় সৃষ্ট সমস্যা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে, যার ফলে বিশ্বে চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে অসামঞ্জস্য এখনো বিদ্যমান। এর ফলে ২০২১ সালের শুরু থেকে বিশ্ববাজারে অধিকাংশ পণ্যের দাম বেড়েছে, যা এখনো পূর্বাবস্থায় ফেরেনি। এ জন্য মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখার লক্ষ্যে ওভার নাইট বা এক দিনের জন্য ধার করা টাকা বা রেপোর সুদহার ২৫ বেসিস পয়েন্ট বৃদ্ধি করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

সুদহার বাড়লেও রিভার্স রেপোর সুদহার ৪ শতাংশ অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। রিভার্স রেপো হলো ব্যাংকের কাছ থেকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের টাকা নেওয়া।

চলতি বছরের মে মাসের আগ পর্যন্ত রেপোর সুদহার ছিল ৪ দশমিক ৭৫ শতাংশ। গত ২৯ মে এক নির্দেশনার মাধ্যমে বেসিস পয়েন্ট শূন্য দশমিক ২৫ শতাংশ বাড়ানো হয়। এরপর ৩০ জুন আবার বেসিস পয়েন্ট ৫০ শতাংশ বাড়িয়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ দফায় বেসিস পয়েন্ট বাড়লো ২৫ শতাংশ।

২০২০ সালে করোনাভাইরাসের প্রভাব শুরুর আগে অবশ্য রেপোর সুদহার ছিল ৬ শতাংশ। তিন দফায় ১ দশমিক ২৫ শতাংশীয় পয়েন্ট কমিয়ে ৪ দশমিক ৭৫ শতাংশে নামানো হয়। ২০১৩ সালে রেপোতে সর্বোচ্চ সুদহার ছিল ৭ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *