কিংবদন্তি শিল্পী রুনা লায়লা

কিংবদন্তিতুল্য শিল্পী রুনা লায়লা

:: ফজলে এলাহী ::

কিংবদন্তি শিল্পী রুনা লায়লার নাম শোনেননি বাংলাদেশে এমন মানুষ পাওয়া যাবে না। যারা গান নিয়মিত গান শোনেন তাঁরা তো জানেই এমনকি যারা গান শোনেননা তাঁরা সকলেই রুনা লায়লা নামটির সাথে পরিচিত। সবাই জানে রুনা লায়লা নামে আমাদের একজন অসাধারন শিল্পী আছেন যার গানের ভক্ত আবাল –বৃদ্ধ-বনিতা সবাই। বাংলা চলচ্চিত্রের গানের বিশাল ভাণ্ডারে যখন আপনি প্রবেশ করবেন তখন রুনা লায়লার অসংখ্য গান আপনাকে মুগ্ধ করবে। এছাড়া আধুনিক গানেও রুনা লায়লার গান আপনাকে মুগ্ধ করবে । রুনা লায়লা এমন একজন শিল্পী যিনি চলচ্চিত্র, আধুনিক, ফোক , গজল , ক্লাসিক্যাল যে ধরনের গানই গান করেন না কেন সব গানেই সমান পারদর্শী, সব গানেই রুনার কণ্ঠটি অদ্ভুত সুন্দর ভাবে মানিয়ে যায়। এমনকি চলচ্চিত্রে শিশু শিল্পীর ঠোট মেলানো গানও রুনার আছে অর্থাৎ তাঁর কণ্ঠের ধার এত শক্তিশালী যা আজো একইরকম রয়ে গেছে ।

রুনা লায়লার পৈত্রিক বাড়ী রাজশাহীতে কিন্তু জন্মগ্রহন করেন সিলেটে ১৯৫২ সালের ১৭ই নভেম্বর। রুনার বাবা মোঃ ইমাদ আলী তখন চাকরীসুত্রে সিলেটে বাস করছিলেন ।মায়ের নাম অনিতা সেন ওরফে আমেনা লায়লা। রুনার মা সঙ্গীত শিল্পী ছিলেন। ভারতের প্রখ্যাত সঙ্গীত শিল্পী সুবীর সেন ছিলেন রুনা লায়লার মামা। রুনার বড় বোন দিনা লায়লা’র কাছ থেকে গান শেখার অনুপ্রেরনা পান কারন দিনা লায়লা গান শিখতেন তাই বড় বোনের দেখাদেখি রুনারও ইচ্ছে হলো গান শেখার । রুনার বড় বোন দিনা একদিন অসুস্থ থাকায় বোনের পরিবর্তে রুনা মঞ্চে তানপুরা নিয়ে ‘ খেয়াল’ পরিবেশনা করে সবার নজর কাড়েন । তাই মাত্র ১২ বছর বয়সে উর্দু ছবি ‘জগনু’ তে ‘গুরিয়াসি মুনি্ন মেরি’ গানটি গেয়ে প্রথম প্লেব্যাক করেন । ১৯৬৮ সালে ‘কমান্ডার’ চলচ্চিত্রের জন্য গান গেয়ে তিনি ‘নিগার ফিল্ম ক্রিটিক পুরস্কার’ পেয়েছিলেন। তত্কালীন পাকিস্তান টেলিভিশনেও তিনি নিয়মিত গান পরিবেশন করতেন।

কিশোরী বয়সে রুনা যখন পশ্চিম পাকিস্তানে সিনেমার প্লে ব্যাক নিয়ে ব্যস্ত তখন সঙ্গীত পরিচালক সুবল দাস ও চিত্র পরিচালক নজরুল ইসলাম রুনাকে ‘স্বরলিপি’ চলচ্চিত্রে গান করার অনুরোধ করেন । গাজী মাজহারুল আনোয়ারের লিখা ‘গানেরই খাতায় স্বরলিপি লিখে কি হবে’ এই গানটি দিয়েই বাংলা চলচ্চিত্রের গানে প্রথম কণ্ঠ দেন রুনা যা তাঁর চলচ্চিত্রের প্রথম বাংলা গান । ১৯৭৫ সালে সাবিনা ইয়াসমিন এর সাথে ‘প্রতিনিধি’ ছবিতে ‘তুমি বড় ভাগ্যবতী’ গানটির মাধ্যমে প্রথম সাবিনার সাথে দ্বৈত গান করেন। কিন্তু এরপর সাবিনা ও রুনা বহুদিন একসাথে গান করেননি ।

স্বাধীনতার পর রুনা যখন ১৯৭৪ সালে দেশে ফিরে এসে সত্য সাহার সুরে ‘জীবন সাথী’ ছবিতে প্রথম প্লেব্যাক করেন। তখন গান গাইতে গিয়ে অনেক বাধার সম্মুখীন হয়েছিলেন । সৈয়দ আব্দুল হাদী তো তাঁর সাথে অনেকদিন গানই করেননি । এরপর ধীরে ধীরে হয়ে যান বাংলা চলচ্চিত্রের গানের এক অপরিহার্য শিল্পী । এরপর একে একে রুনার কণ্ঠ থেকে আমরা পাই ‘আমার মন বলে তুমি আসবে ‘,‘আমি নদীর মতো কতো পথ ঘুরে’, ‘কার তরে নিশি জাগো রাই’ ‘যখন থামবে কোলাহল’ , ‘আয়রে মেঘ আয়রে ‘, ;বাড়ীর মানুষ কয় আমার ভুতে ধরেছে’ , ‘বন্ধু তিনদিন তোর বাড়িত গেলাম ‘ , ‘ মাগো তোর কান্না আমি সইতে পারিনা’, ‘ একা একা কেন ভালো লাগে না ‘ ‘ এই বৃষ্টি ভেজা রাতে চলে যেও না ‘ গানগুলোর মতো জনপ্রিয় গান। বাংলা ছবিতে রুনার অনেক অনেক জনপ্রিয় গান আছে যা চিরকাল শ্রোতাদের মনে থাকবে এবং যা বাংলা চলচ্চিত্রের ভাণ্ডারকে করেছে সমৃদ্ধ । পাকিস্তানের সুরকার নিজাম বাসমীর সুরে একদিনে ৩০টি গানে কণ্ঠ দিয়ে বিশ্বরেকর্ড করেন যা ‘গিনেস ওয়ার্ল্ড বুক’ কর্তৃপক্ষ লিপিবদ্ধ করেন । ১৯৮৩ সালে ১৯৮৩ সালে রিলিজ হওয়া অ্যালবাম “সুপার রুনা” প্রথম দিনেই ১ লাখ কপি বিক্রি হয়, ফলে এইচএমভি কর্তৃক উপহার পান গোল্ড ডিস্ক।

প্রথম স্বামী জাভেদ কায়সারের সাথে বিবাহ বিচ্ছেদের পর চিত্রনায়ক আলমগীরের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হোন । জাভেদ –রুনার সংসারে জন্ম নেয়া তানি লায়লা রুনার একমাত্র সন্তান । রুনা জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন ৫বার – দি রেইন (১৯৭৬), যাদুর বাঁশী (১৯৭৭), অ্যাকসিডেন্ট (১৯৮৯), অন্তরে অন্তরে (১৯৯৪), তুমি আসবে বলে (২০১২) এবং স্বাধীনতা পদক (১৯৭৭) সহ বাচসাস পুরস্কার, চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতি পুরস্কার, নিগার অ্যাওয়ার্ড (পাকিস্তান) সহ আরো অনেক পুরস্কার পেয়েছেন।

ভারতের যেমন একজন লতা মুঙ্গেশকার আছেন ঠিক তেমনি আমাদের আছেন একজন রুনা লায়লা । ওপার বাংলা থেকে আসা আমন্ত্রিত শিল্পীরা এই বাংলার অন্য কোনো শিল্পীকে চিনুন আর না-ই চিনুন, রুনা লায়লাকে ঠিকই চেনেন। আর তারা তার গানের ভক্ত বলেও জানান। রুনা লায়লা এই বাংলার অহঙ্কার। তা নিঃসন্দেহেই সবাই স্বীকার করেন। উপমহাদেশের জীবন্ত কিংবদন্তী রুনা লায়লা

বাংলা চলচ্চিত্র থেকে রুনা লায়লার কিছু গানের লিংক পাঠকদের শোনার জন্য দিলাম
আমরা দুজন চিরসাথী – https://app.box.com/s/uyup6dokx2lymky48q19
যেন হাজার বছর তুমি – https://app.box.com/s/ezbkifdypsv93f52ml8c
তুমি আমার জীবন প্রিয় – https://app.box.com/s/9psj8ii657ikm5gvo1qd
আর যাবো না আমেরিকা – https://app.box.com/s/2v1g6xy2sqqk1iv657z8
ঠিক ঠিক মনে রবে – https://app.box.com/s/9fcbf3090741482df27f
কত ভালোবাসি আমি তোমাকে – https://app.box.com/s/ooccj35n6jgzbgvcgbxp
আয়রে মেঘ আয়রে – https://app.box.com/s/03drpv0e2ocoyn2vin61
আমার একদিকে পৃথিবী – https://app.box.com/s/91rx694dp9f0pz89n2lm
তুমি আমার জীবন – https://app.box.com/s/50b5ea42259a9509e196
বুকে আছে মন – https://app.box.com/s/u9t9qyj5j8v21xu3h904
সুন্দর সন্ধায় – https://app.box.com/s/n35iu7kvu0qnjjb3dg
প্রিয়া আমার প্রিয়া – https://app.box.com/s/iedpd7olgyu25talt646
একা একা কেন ভালো লাগেনা – https://app.box.com/s/ebw38rslc29kxlw2gvaw
বৃষ্টিতে দাঁড়িয়ে ছিলাম – https://app.box.com/s/xifrz8gzkdxlhcx21g1q
ঘর ছেড়েছি দুজনে – https://app.box.com/s/1ghl76a3n540n0kgcogg
মন মানে না – https://app.box.com/s/a00seaoh14hxtm09a24s
তুমি শরতবাবুর নও তো দেবদাস- https://app.box.com/s/2r68ktgz40qyzrkee61g
তোমরা কাউকে বলো না – https://app.box.com/s/ayrro9cogmfkia9ktprf
তোমাদের এই খুশির মেলায় – https://app.box.com/s/2l7aifuxq9ogidem60ok
মন্দ হোক ভালো হোক – https://app.box.com/s/fft2mck9fczt78qc55in
তোমাকে আমি কিছু বলতে চাই – https://app.box.com/s/0evdxb9sb9z01disl7jn

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *