আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় ৩য় বাংলাদেশের তাকরিম

:: নাগরিক নিউজ ডেস্ক ::

আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় ১১১ দেশের ১৫৩ হাফেজের মধ্যকার প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থান অর্জন করেছেন বাংলাদেশের হাফেজ সালেহ আহমদ তাকরিম। সৌদি আরবের মক্কায় ‘৪২তম বাদশাহ আব্দুল আজিজ আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা’ অনুষ্ঠিত হয়। 

বুধবার রাতে মক্কার পবিত্র হারাম শরিফে একটি বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে চূড়ান্ত বিজয়ীদের মধ্যে তৃতীয় বিজয়ী হিসেবে তাকরিমের নাম ঘোষণা করা হয়। এসময় তার হাতে এক লাখ রিয়াল (প্রায় সাড়ে ২৭ লাখ টাকা) পুরস্কার, সনদ ও সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয়।

পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজের প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তার উপদেষ্টা ও মক্কা নগরীর গভর্নর খালেদ আল ফয়সাল বিন আবদুল আজিজ এবং দেশটির ইসলাম ও দাওয়াহবিষয়ক মন্ত্রী ড. আবদুল লতিফ বিন আবদুল আজিজ আলে শেখসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ।

সালেহ আহমাদ তাকরিম টাঙ্গাইলের নাগরপুর থানার ভাদ্রা গ্রামের হাফেজ আব্দুর রহমানের ছেলে। তিনি গুলশান সোসাইটি জামে মসজিদের খতিব মুফতি মুরতাজা হাসান ফয়েজী মাসুম প্রতিষ্ঠিত ‘মারকাযু ফয়জিল কুরআন আল ইসলামি ঢাকা’র হিফজ বিভাগের শিক্ষার্থী।

এর আগে গত মে মাসে আন্তর্জাতিক কিরাত সংস্থা বাংলাদেশের তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত নির্বাচনি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করে লিবিয়ায় অনুষ্ঠিত ১০ম আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিনিধি নির্বাচিত হয় তাকরিম। লিবিয়ার বন্দরনগরী বেনগাজিতে আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআনের সেই বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় সপ্তম স্থান অর্জনের পাশাপাশি সর্বকনিষ্ঠ প্রতিযোগী হিসেবে বিশেষ সম্মাননাও অর্জন করেন তিনি।

তারও আগে তেহরানের আন্দিশাহ (আল-ফিকির) মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ৩৮তম আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় তাকরিম বিশ্বে প্রথম স্থান অর্জন করে বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকা বিশ্ব দরবারে সমুন্নত করে। ২০২০ সালের পবিত্র রমজান মাসে বাংলাভিশন টেলিভিশন আয়োজিত হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয় সালেহ আহমাদ তাকরিম।

সৌদি আরবের পবিত্র মক্কায় অনুষ্ঠিত ‘৪২তম বাদশাহ আব্দুল আজিজ আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা’য় তৃতীয় স্থান অর্জনকারী বাংলাদেশী ক্ষুদে হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরিম বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত পৌনে ২টার দিকে রাজধানীর শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবে।

এ সময় তাকে স্বাগত জানাতে বিমানবন্দরে উপস্থিত থাকবেন তার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান‘মারকাযু ফয়জিল কুরআন আল ইসলামী মাদরাসা’ কর্তৃপক্ষ ও নির্দিষ্ট কয়েকজন শুভাকাঙ্ক্ষী। 

তবে তিনি আজ রাতে বিমানবন্দরে সাধারণ শুভাকাঙ্ক্ষীদের উপস্থিতিকে নিরুৎসাহিত করেছেন। মাওলানা হোসাইন রাহমানী বলেছেন, ‘বিশ্বজয়ী এ হাফেজকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানাতে বহু কুরআনপ্রেমিক ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান আমাদের সাথে নানাভাবে যোগাযোগ করেছেন। আমরা তাদের আবেগকে পূর্ণ শ্রদ্ধা করি। এজন্য তাদের সংবর্ধনা প্রদানের জন্য ‘মারকাযু ফয়জিল কুরআন আল ইসলামী মাদরাসা’ আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর ‘বিশেষ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে’র আয়োজন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। আমরা ওই অনুষ্ঠানের সফলতার জন্য সকলের কাছে দোয়া চাই’

এদিকে একটি সূত্র জানিয়েছে, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান (এমপি) বর্তমানে ঢাকার বাইরে আছেন। তিনি ফিরলে সরকারের তরফ থেকে হাফেজ তাকরিমকে বিশেষ সংবর্ধনা দেয়া হবে।

মক্কায় অনুষ্ঠিত এবারের আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় সালেহ আহমাদ তাকরিম ১৫ পারা গ্রুপে (চতুর্থ গ্রুপ) অংশ নেয়। এই গ্রুপে প্রথম স্থান অর্জন করেছে লিবিয়ার যিয়াদ মোহাম্মদ খলিল হাবিশ। পুরস্কার হিসেবে সে পেয়েছে এক লাখ ২০ হাজার সৌদি রিয়াল। দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে কেনিয়ার আব্দুর রহমান মুসা আব্দুল্লাহ। সে পেয়েছে এক লাখ ১০ হাজার সৌদি রিয়াল। আর তৃতীয় স্থান অর্জনকারী বাংলাদেশের সালেহ আহমাদ তাকরিম। সে এক লাখ সৌদি রিয়াল পুরস্কার পেয়েছে। বাংলাদেশী মুদ্রায় যা প্রায় সাড়ে ২৭ লাখ টাকা।

এবারের ‘৪২তম বাদশাহ আব্দুল আজিজ আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা’ সর্বমোট পাঁচটি গ্রুপে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে পুরস্কার দেয়া হয়েছে অন্তত ২৭ লাখ রিয়াল।

প্রথম গ্রুপ : কিরাতে সাব’আ-সহ সম্পূর্ণ কুরআন। এই গ্রুপে প্রথম হয়েছেন মিসরের বেলাল আস-সাইয়েদ মোহাম্মদ মোহাম্মদ আল সানহুরি। তিনি পেয়েছেন তিন লাখ ৫০ হাজার রিয়াল। দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছেন সুদানের আব্দুল লতিফ উসমান আব্দুল হামিদ মালিক। তিনি পেয়েছেন তিন লাখ ২৫ হাজার রিয়াল। তৃতীয় হয়েছেন সৌদি আরবের মোহাম্মদ বিন ইবরাহিম আব্দুস সালাম ইদরিস। তার পুরস্কারের অংক তিন লাখ রিয়াল।

দ্বিতীয় গ্রুপ : তাজবীদ ও তাফসীরসহ সম্পূর্ণ কুরআন। এই গ্রুপে প্রথম হয়েছেন কিরগিজস্তানের মোহাম্মদ আলি আমারুফ। পুরস্কার হিসেবে তিনি পেয়েছেন দুই লাখ ৫০ হাজার রিয়াল। দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছেন সৌদি আরবের খালিদ বিন সুলাইমান সালেহ আল বারাকানি। তিনি জিতিছেন দুই লাখ ৩০ হাজার রিয়াল। তৃতীয় হয়েছেন বাহরাইনের আব্দুর রহামান বাদী মুহাহহির মুকাররিদ কালিব। তিনি পেয়েছেন দুই লাখ ১০ হাজার রিয়াল।

তৃতীয় গ্রুপ : তাজবীদসহ সম্পূর্ণ কুরআন। এই গ্রুপে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন মরক্কোর আহমাদ আশারি। পুরস্কার স্বরূপ তিনি পেয়েছেন দুই লাখ রিয়াল। দ্বিতীয় হয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার জাহরান আওজান। তিনি পেয়েছেন এক লাখ ৮৫ হাজার রিয়াল এবং তৃতীয় হয়েছেন গাম্বিয়ার আব্দুল্লাহ আনজাঈ। তিনি জিতেছেন এক লাখ ৭০ হাজার রিয়াল।

পঞ্চম গ্রুপ : পাঁচ পারা গ্রুপ। (এই গ্রুপে ওআইসির সদস্য নয়- এমন দেশের হিফজ প্রতিনিধিরা অংশ নেয়) এই গ্রুপে প্রথম হয়েছে থাইল্যান্ডের আহমাদ সামুহ। সে পেয়েছে ৫৫ হাজার সৌদি রিয়াল। দ্বিতীয় হয়েছে মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রের ইদরিস মোহাম্মদ জেইন। সে পেয়েছে ৫০ হাজার সৌদি রিয়াল এবং তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে জার্মানির আমিন কানান। সে ৪৫ হাজার সৌদি রিয়াল পুরস্কার পেয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.